রবিবার, ১৬ Jun ২০২৪, ০২:২৮ অপরাহ্ন

শিরোনামঃ

বিজ্ঞাপন

বান্দরবানের লামা উপজেলায় নিরাপত্তা চৌকির জমি দখলের চেষ্টা

বান্দরবানের লামা উপজেলায় নিরাপত্তা চৌকির জমি দখলের চেষ্টা

 

 

লামা আলীকদম প্রতিনিধিঃ ইসমাইল হোসেন

 

 

বান্দরবানের লামা উপলজেলার দুর্গম এলাকায় আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর নিরাপত্তা চৌকির নির্ধারিত স্থান দখলের চেষ্টা করেছে  দুর্বৃত্তরা। লামার ফাসিয়াখালী ইউনিয়নের দুর্গম গয়ালমারা গ্রামে গত ১২ নভেম্বর এ ঘটনা ঘটে।
দখলের সময় নিরাপত্তা বাহিনীর কোন টিম উপস্থিত ছিলো না।ওই সময় স্থানীয়রা বিষয়টি লামার ত্রি-ডেবা বিজিবি ক্যাম্পে অবগত করিলে, বিজিবি সদস্য সেখানে দ্রুত উপস্থিত হলে বহিরাগত সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। গ্রামবাসী জানায়, লামায় পাহাড়ের গহীনে দুর্গম জনবিচ্ছিন্ন এলাকায় অবস্থিত হওয়ায় গলায়মারা গ্রাম একটা সময় বিভিন্ন সন্ত্রাসীগ্রুপগুলোর আস্তানায় পরিণত হয়েছিলো। কিন্তু সেখানে নিরাপত্তা বাহিনীর নিজস্ব কোন পাহারা চৌকি ছিলনা,ফলে নিরাপত্তা বাহিনী সেখানে বেশি সময় অবস্থান করতে পারতো না।
পরিস্থিতি বিবেচনায় গ্রামের জন-নিরাপত্তার স্বার্থে স্থানীয় মুহম্মদীয়া জামিয়া শরীফ মাদ্রাসা তাদের নিজস্ব ক্রয়কৃত জমিতে ২০১৫ সালে একটি ঘর নির্মাণ করে দেয়। ওই ঘরে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা বছরে বিভিন্ন সময় ক্যাম্প স্থাপন করে।
বছরে ২-৩ বার ১০-১২ দিন সেখানে অবস্থান করে গ্রামবাসীর নিরাপত্তার বিষয়টি দেখাশোনা করেন।নিরাপত্তা বাহিনী নিজ উদ্যোগে সেই বাড়িতে “নিরাপত্তা বাহিনীর জন্য নির্ধারিত স্থান” লিখিত একটি সাইনবোর্ডও লাগায়।
এছাড়া এর পাশেই রয়েছে সেনাবাহিনীর তৎকালীন জোন কমান্ডার ‘সাঙ্গু দুর্বার মৈত্রী প্রাথমিক বিদ্যালয় নামক একটি স্কুলপ্রতিষ্ঠা করে। আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর অস্থায়ী ক্যাম্প ও স্কুল স্থাপনের পর ঐ এলাকায় সন্ত্রাসীদের দৌরাত্ব হ্রাস পায় এবং এলাকায় শান্তি-শৃঙ্খলা ফিরে আসে। সেখানে নিরাপত্তা বাহিনীর অস্থায়ী চৌকি ও স্কুল নির্মাণের বিষয়টি স্থানীয় ও বহিরাগত সন্ত্রাসী অপরাধী চক্রগুলো ভালোভাবে মেনে নেয়নি। বহিরাগত দুর্বৃত্তরা বিভিন্ন সময় ওই স্থানে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর অবস্থান ও আসা-যাওয়াকে বাধাগ্রস্ত করার ষড়যন্ত্রমূলক চেষ্টা করেছে। যার অংশ হিসেবে গত শুক্রবারের ঘটনাটি ঘটে।
গয়ালমারা গ্রামে সরেজমিনে গিয়ে ঘটনার সত্যতা পান সংবাদ কর্মিরা। গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা মুহম্মদ নুরুল আজিম ও মুহম্মদ রিদুওয়ান জানান, গত ১২ নভেম্বর সন্ধা নামার পর বহিরাগত সন্ত্রাসী ও ভূমি দস্যুদের নেতা জিন্নাত আলী কুতুবী ওরফে আলু গোলা ৪০-৫০ জন সশস্ত্র অপরিচিত লোক নিয়ে গ্রামের প্রবেশ করে।সন্ত্রাসীরা নিরাপত্তা বাহিনীর নির্ধারিত চৌকি ওই ঘরটি দখল করে নেয়
দীর্ঘদিন ধরে কুতুবদিয়ার এই সন্ত্রাসী চক্রটি প্রতারক, ভূমি দস্যু, মিথ্যা আইনজীবি, ডাক্তার, রাজনৈতিক নেতা ইত্যাদি পরিচয়দানকারী জিন্নাত আলীর অত্যাচার থেকে রেহায় প্রার্থনা করছেন দূর্গমের বাসিন্দারা।বিষয়টির প্রতি লামা উপজেলা ও বান্দরবান জেলা আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর নজর দেওয়া উচিত বলে জানান স্থানীয়রা।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




সম্পাদক ও প্রকাশক

No description available.

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ মোঃ ওমর ফারুক চৌধুরী

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকঃ ইঞ্জিঃ সোহরাব হোসেন শাহেদ

সহঃ ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকঃ রিফাত আহম্মেদ

নির্বাহী সম্পাদকঃ মোল্লা মোহাম্মদ হাসান

বার্তা সম্পাদকঃ মোঃ লস্কর আলী

ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ মোঃ সগির আহম্মেদ

অফিসঃ৪৮/বি, পশ্চিম যাত্রাবাড়ী,ঢাকা-১২০৪।

ওয়েব সাইট-www.bortomanjonojibon.com

নিউজ মেইলঃ newsbortomanjonojibon@gmail.com

যোগাযোগ- ০২-৭৫৪২৩১২

এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Bangla Webs